English to Bengali, বাংলা ও ইংরেজি, Online English to Bengali Tense, English Gramma

শিক্ষায় জীবন

Showing posts with label রবীন্দ্রনাথের বাণী সমগ্র. Show all posts
Showing posts with label রবীন্দ্রনাথের বাণী সমগ্র. Show all posts

Thursday, July 22, 2021

মধু খাওয়ার উপকারিতা । প্রকারভেদ ও খাবার পদ্ধতি] মধু খাওয়ার উপকারিতা । প্রকারভেদ ও খাবার পদ্ধতি । Benefits of Honey মধু খাওয়ার উপকারিতা মধু আসলে কী ?

 মধু খাওয়ার উপকারিতা । প্রকারভেদ ও খাবার পদ্ধতি]

মধু খাওয়ার উপকারিতা । প্রকারভেদ ও খাবার পদ্ধতি । Benefits of Honey
মধু খাওয়ার উপকারিতা
মধু আসলে কী ? 

মধু হল আসলেএক ধরণের মিষ্টি এবং ঘন তরল পদার্থ, যা মৌমাছি ও নানারকম পতঙ্গ বিভিন্ন রকমের ফুলের নির্যাস সংগ্রহ করে মৌচাকে জমা করে। এটি খুব উন্নত ওষধিগুণ সম্পন্ন একটি ভেষজ তরল। বর্তমানে চিনির বহুল প্রয়োগ সত্ত্বেও বিভিন্ন খাদ্য প্রস্তুতিতে মধুর ব্যবহার জনপ্রিয়। অধুনা নারীদের রূপচর্চায় মধুর ব্যবহার বেশ জনপ্রিয়। মধুর বিশেষ গুণ হল এটি সহজে নষ্ট হয়ে যায় না। এমনকি কয়েকশো বছরেও না। মধু খুব ঘন হওয়ায় কোনো জীবানু মধুর ভেতরে এক ঘণ্টার বেশি বাঁচতে পারে না ।


মধুতে যে রাসায়নিক উপাদান থাকে :-
মধুতে মানুষের শরীরে প্রয়োজনীয় প্রায় ৪৫টি খাদ্য উপাদান মজুত থাকে।


ফুলের পরাগ নিঃসৃত মধুতে পাওয়া যায়-

২৫ থেকে ৩৬ শতাংশ গ্লুকোজ,
৩৪ থেকে ৪২ শতাংশ ফ্রুক্টোজ,
০.৫ থেকে ৩.০ শতাংশ সুক্রোজ
এবং ৫-১২ শতাংশ মন্টোজ।
আরো থাকে ২০-২২ শতাংশ অ্যামাইনো এসিড,
২৭-২৮ শতাংশ খনিজ লবণ
আর ১০-১১ ভাগ এনকাইম।


মধুতে প্রোটিন আর ফ্যাট থাকেনা । ১০০ গ্রাম মধুর তাপনমূল্য প্রায় ২৮০ ক্যালরির মত। মধুর মধ্যে থাকে আয়োডিন, জিংক ও কপার প্রভৃতি খনিজ সহ ভিটামিন বি এর বিভিন্ন উপাদানগুলি। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কথা হল মধুতে কোনো কোলস্টেরল থাকে না।

মধুর প্রকারভেদ :-

মধু নানা প্রকারের হয়ে থাকে, তবে সব থেকে জনপ্রিয় প্রকারের মধুগুলির নাম এখানে দেওয়া হল :-


মানুকা মধু :- লেপ্টোস্পের্মম স্কোপারিয়াম গাছে মৌমাছির দ্বারা সংগৃহীত মধু। এই মধু মানুকা প্রথম নিউ জিল্যান্ড এ প্রচলিত হয়।
ব্লবেরি মধু :– নীল জামের নির্যাস থেকে সংগ্রহ করা এই মধু ইংল্যান্ড ও মিকিগানে খুব বিখ্যাত।
অরেঞ্জ ব্লসম মধু :- কমলা লেবু থেকে সংগ্রহ করা এই জাতীয় মধু ফ্লোরিডা ও ক্যালিফোর্নিয়া অঞ্চলে খুব বিখ্যাত।
বাকহুইট মধু :- বাকহুইট গাছের ফুল থেকে মৌমাছি সংগ্রহ করে এই জাতীয় মধু।
আলফালফা মধু :- ছোট ছোট ফুল গাছের থেকে মৌমাছির দ্বারা পরাগিত হয়ে থাকে এই জাতীয় মধু।
ক্লোভার মধু :- ক্লোভার গাছের থেকে মৌমাছির দ্বারা চয়ন করা মধু ক্লোভার মধু নামে পরিচিত।




ঘরে সংরক্ষিত মধু যে সমস্ত উপকারে লাগে তার তালিকা করতে হলে অনেক লম্বা হয়ে যাবে। তার মধ্যে সবচেয়ে বহুল প্রচলিত ও জনপ্রিয় বিষয়গুলি নিম্নরূপ-


মধু খাওয়ার উপকারিতাগুলি হলঃ – ১। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে :-

মধুতে থাকা ভিটামিন বি কমপ্লেক্স কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে। সকালবেলা খালি পেটে দুই চামচ খাঁটি মধু নিয়মিত খেলে ভীষণ উপকার পাওয়া যায়।


২। ওজন কমায়:-

ওজন বেড়ে যাচ্ছে ? কিংবা বাড়তি মেদ ঝরিয়ে ফেলতে চান ? অথবা শরীরের স্লিম ভাব ধরে রাখতে চান ? তাহলে আপনার সবচেয়ে কার্যকর ভেষজ খাবার হল মধু। সকালবেলা খালি পেটে কুসুম গরম জলের সঙ্গে মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে খান। দেখুন ম্যাজিকের মতো কাজ করে কিনা ।


৩। মুখের দুর্গন্ধ দূর করে :-

মুখের ভিতরে নানা খদ্যদ্রব্য আটকে থাকে আর সেসব থেকে নানা জীবাণু ক্রিয়া করে। অনেকসময় মুখের ভিতরে আলসার বা ঘা হয়ে থাকে। কখনো মাড়ির গোড়া থেকে পুঁজ বেরোয়। যদি আপনি নিয়মিত মধু সেবন করেন তাহলে মুখের সেইসব সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেতে পারেন। আর মুখের দুর্গন্ধ অচিরেই পালিয়ে গেছে দেখবেন।


৪। হৃদরোগের উপশম ঘটায় :-

মধু উষ্ণতা বৃদ্ধি করে এবং রক্ত সঞ্চালন সুস্থ ও স্বাভাবিক করে। ফলে হৃদপেশি মজবুত করে হৃদপিণ্ডের ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয় । রোজ এক চামচ মৌরির গুড়োর সঙ্গে এক চামচ মধু খেয়ে যান। এইভাবে নানা হৃদরোগের হাত থেকে দূরে থাকা সম্ভব হবে।


৫। হাঁপানি রোধে সাহায্য করে :-

সামান্য গোলমরিচের গুঁড়োর সঙ্গে আদা মিশিয়ে মধুর সঙ্গে দিনে অন্তত বার তিনেক সেবন করলে হাঁপানির মতো রোগের যন্ত্রণা থেকে আরাম পাওয়া যায়।


৬। সর্দি-কাশি কমায় :-

আমাদের ঠাকুমা দিদিমারা সর্দি কাশিতে বাসক পাতা, তুলসি পাতা ইত্যাদির সঙ্গে আদা মিশিয়ে মধুর সঙ্গে খেতে বলতেন। এটা যুগ যুগ ধরেই চলে আসছে। বুকের কফ পরিষ্কার করতে এর তুলনা নেই।


৭। হজমশক্তি বাড়ায় :-

হজমের সমস্যা ! গুরুপাক কোনো খাবারের আগে Aciloc খাবার বদলে এক চামচ মধু খেয়ে নিন। দেখবেন পেটের অ্যাসিড ভাব দূর হয়ে ভালো হজম হয়ে গেছে। এছাড়া রোজ খালি পেটে গরম জলের সঙ্গে মধু খাবার অভ্যাস করলে গ্যাস অ্যাসিডিটি দূর হয়ে ভালো হজম হবার অভিজ্ঞতা লাভ করবেন।


৮। গলাভাঙ্গা দ্রুত সারায় :-

যাকে আমরা গলাভাঙ্গা বলি সেটা আসলে স্বরভঙ্গ । বেশি ঠাণ্ডা লাগলে কন্ঠ নালীর স্বরতন্ত্র আঘাতপ্রাপ্ত বা আক্রান্ত হলেই এরকমটা হয়ে থাকে। তাই এরকম হলে সৈন্ধব লবণ বা Rock salt এর সঙ্গে আমলকি,পিপুল, গোল মরিচ ইত্যাদির সঙ্গে মধু মিশিয়ে এক চা চামচ করে খেলে কফ যেমন দূর হবে তেমনি ও স্বরভাঙ্গাও দ্রুত কমে যাবে।


৯। যৌবনীশক্তি ধরে রাখে :-

শরীরের পাশাপাশি যৌন ক্ষমতা ধরে রাখতে মধুর তুলনা নেই। ধাতু দুর্বলতা কিংবা যৌন ক্ষমতা কমতে থাকার হাত থেকে উন্নত অবস্থায় যেতে চাইলে নিয়মিত মধু সেবন করা দরকার।


১০। রক্ত পরিষ্কার রাখে :-

লেবুর রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে নিয়মিত খেলে রক্ত পরিষ্কার থাকে। এটা অভ্যাস করতে পারলে শরীরের অনেকগুলি দিকে উপকার পাওয়া যাবে।


১১। শরীর গরম রাখে :-

লোকে বলে মধু খেলে শরীর গরম থাকে । কথাটি খুব সত্যি। এক কাপ গরম জলে এক চামচ মধু মিশিয়ে খেলে শরীর গরম হয়। শীতের সময় এটি খুবই কার্যকরি। কেননা মধুর মধ্যে থাকা উচ্চ ক্যালরি শরীর গরম রাখতে সাহায্য করে।


১২। বাতের ব্যাথায় আরাম দেয় :-

যে কোনো ভাবেই যদি নিয়মিত মধু সেবন করা যায় তাহলে বাতের ব্যাথার মত গাঁটের ব্যাথা থেকে খুব আরাম পাওয়া যায়। তবে মনে রাখতে হবে মধু খাবার পরিমাণ যেন নির্দিষ্ট পরিমাণে এবং তা নিয়ম করে খাওয়া হয়।




১৩। পেশি সুদৃঢ় করে :-

মধুর মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের পেশিকে যেমন দৃঢ় ও শক্তিশালী করে। তেমনি দেহের নানা ঘাত প্রতিঘাত সহ্য করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।


১৪। ফুসফুসের কর্মক্ষমতা বাড়ায় :-

মধুর মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট , বিভিন্ন ভিটামিন আর মিনারেল সমূহ রক্ত পরিষ্কার করার পাশাপাশি ফুসফুসের কার্য ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দিতে সাহায্য করে।


১৫। দাঁতের গোড়া শক্ত করে :-

দাঁতকে ও দাঁতের গোড়া মজবুত করতে হলে নিয়মিত মধু সেবন করা দরকার। বিভিন্ন জীবানু মধুর সংস্পর্শে ধ্বংস হয়ে যায়।


১৬। হিমোগ্লোবিন বাড়িয়ে রক্তশূন্যতা দূর করে :-

মধুর মধ্যে থাকা কপার, লৌহ ও ম্যাঙ্গানিজ ইত্যাদি উপাদানগুলি রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে রক্তাল্পতা দূর করে। বিশেষ করে নারীদের মধ্যে রক্তাল্পতার সমস্যা বেশি হবার সম্ভাবনা থাকে। তাই তারা নিয়মিত মধু সেবন করলে রক্তের হিমোগ্লোবিন কমে যাবার সম্ভাবনা দূর হয়।


১৭। যৌনক্ষমতা বাড়ায় :-

কুসুম গরম দুধের সঙ্গে মধু সেবন করলে তারুন্য শক্তি যেমন বজায় থাকে তেমনি নিয়মিত খেলে যৌনক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়। তাই যুগ যুগ ধরেই মধু খাবার প্রচলন রয়েছে।


১৮। অনিদ্রা দূর করে :-

মধুর গুনের মধ্যে থাকা আরেকটি গুন , যা হয়তো অনেকেই জানেন না , সেটা হল অনিদ্রাভাব দূর করার ক্ষমতা। রাতে ঘুমানোর আগে যদি এক গ্লাস হালকা গরম জলের সঙ্গে দুই চামচ মধু মিশিয়ে পান করা যায় তাহলে খুব গভীর ঘুম হবে এবং অনিদ্রার সমস্যা দূর হবে ।


১৯। দ্রুত বমিভাব দূর করে :-

গা গোলানো বা বমি বমি ভাব হলে এক কাপ ঠাণ্ডা জলে এক চামচ মধু আর সামান্য জোয়ানের গুড়ো মিশিয়ে খেলে সঙ্গে সঙ্গে বমি ভাব দূর হয়।


২০। ত্বকের মসৃণতা বৃদ্ধি করে :-

মধু যেহেতু উত্তম একটি ভেষজ , আর এর মধ্যে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের টান টান অবস্থা ধরে রাখার পাশাপাশি ত্বকের ঔজ্জ্বল্য ধরে রাখে। তাই মধু বুড়িয়ে যাওয়া থেকে দূরে রাখে। বর্তমানে তাই রূপচর্চায় মধুর জনপ্রিয়তা বাড়ছে।


মধু খাওয়ার ব্যাপারে সাবধানতা :-

কোনোকিছুই অতিরিক্ত ভালো নয় । তাই নিয়মিত অল্প অল্প করে না খেয়ে একেবারে বেশি পরিমাণ মধু খেলে শরীরে ক্ষতির সম্ভাবনা। আর শরীরে যদি গুরুতর কোনো রোগ থেকে থাকে, সেক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ মেনেই মধু সেবন করতে হবে। আর সবচেয়ে বড় সমস্যা হল মধুতে ভেজাল। ভেজাল মধু খাবার থেকে সাবধান থাকতে হবে ।


খাঁটি মধু কীভাবে চিনবেন :-

মধু কেনার সময় বড় সমস্যাটি হল , বিক্রেতা লোভে পড়ে মধুতে নানারকম ক্যামিক্যাল বা প্রাকৃতিক ভেজাল মেশায়। তাই আসুন জেনে নিই আসল মধু কীভাবে চেনা যায়:-


১। খ্যাতনামা বিশ্বস্ত কোনো কোম্পানির মধু কিনবেন , যা আগে আপনার খেয়ে পরখ করাই আছে।


২। খাঁটি মধু হবে আঠালো চটচটে। চামচে করে তুলে ধরলে লম্বা সুতোর মতো নীচে পড়তে থাকবে।


৩। আঙ্গুলে এক ফোঁটা , মধু নিয়ে উল্টো করে ধরে দেখুন খুব দ্রুত পড়ে যায় কি না। আসল মধু হলে দ্রুত ফোঁটা ফোঁটা পড়ে যাবে না।


৪। মধু জলে খুব দ্রুত মিশে যায় । অন্য ভেজাল থাকলে জলের নীচে গুঁড়ো গুঁড়ো থিতিয়ে থাকবে।


৫। একটা পাত্রে মধু নিয়ে ফ্রিজে কিছুক্ষণ রেখে দিয়ে দেখুন কোনো রকম জমাট বাঁধে কিনা। খাঁটি মধু ফ্রিজের ঠাণ্ডায় জমাট বাঁধবে না ।


আশা করি বন্ধুরা আজকের আর্টিকেল থেকে আমরা ভালো ও দরকারি কিছু শিখতে পারলাম । লেখাটি একটুও যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে আবশ্যই আপনার পরিজনদের শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করে সঙ্গে থাকুন আর অপেক্ষা করুন এরকম আরো সুন্দর কিছু লেখার জন্য।

Wednesday, June 09, 2021

জীবন বদলে দেওয়ার মতো 30 টি বাণী , Believe-in-yourself-sand-stone.

believe-in-yourself-sand-stone

 1. জীবনে অনেক বিষয় আছে যেগুলো তোমার নিয়ন্ত্রণের বাইরে এবং সেগুলো নিয়ে মাথা ঘামানোরও মানে হয় না , কারণ এর বাইরে ও তোমার হাতে হাজার হাজার জিনিস রয়েছে যেগুলো তুমি বিজয় করতে পারো ।

Roy T. Bennett


2. ব্যর্থতাকে ভয় করার বদলে চেষ্টা না করে বসে থাকাকে ভয় করো ।

Roy T. Bennett


3. হার মেনো না । আজকের দিনটা কঠিন , কাল হবে অন্ধকার , কিন্তু তারপর সূর্যকে উঠতেই হবে ।

Jack Ma


4. তুমি যদি এখন থেকেই তোমার স্বপ্ন গুলো সত্যি করার পেছনে ছুটে না চলো , একদিন তোমাকে কাজ করতে হবে অন্যদের জীবনে তাদের স্বপ্ন গুলো সত্যি করার জন্য ।

Anonymous


5. সফল হতে চাইলে তোমার সামনে আসা সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে । চ্যালেঞ্জ বেছে নেওয়ার কোনও সুযোগ নেই ।

Mike Gafka


6. কখনও না পড়ে যাওয়ার মাঝে বীরত্ব নেই , পড়ে গিয়ে উঠে দাঁড়ানোর মাঝেই সত্যিকারের বীরত্ব লুকিয়ে আছে ।

Confucius


7. তুমি কত ধীরে চলেছ , সেটা কোনও ব্যাপার নয় ; না থেমে চলতে থাকাটাই আসল কথা ।

Confucius


8. কোন কিছু যদি সত্যিই তোমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয় , কোন বাধাই তোমাকে থামাতে পারবে না ।

Elon Musk


9. যদি তোমার লক্ষ্য নিয়ে কেউ হাসি তামাশা না করে , তবে বুঝতে হবে তোমার লক্ষ্যটি খুব ছোট ।

Azim Premji


10. আমি স্বপ্ন দেখেছিলাম , সেই স্বপ্নে আস্থা ছিল । আর আমি কাজটা ভালোবাসতাম । ফেসবুক বিফল হলেও আমার ভালোবাসাটা থাকত । জীবনে একটা স্বপ্ন থাকতে হয় সেই স্বপ্নকে ভালোও বসতে হয়।

Mark Zuckerberg


11. স্বপ্ন দেখতে জানলে জীবনের কাঁটাগুলোও ধরা দেয় গোলাপ হয়ে ।

Theodore Zeldin


12. জীবনে সবকিছু একবার হলেও চেষ্টা করে দেখা উচিত । স্রষ্টা প্রতিটি মানুষকে কিছু না কিছু অনুপম দক্ষতা দিয়ে পাঠিয়েছেন , তুমি সেটিকে কখনো জানতেও পারবে না , যতদিন না তুমি সেটা চেষ্টা করে দেখছো।

Anonymous


13. সত্যিকারের জ্ঞানী মানুষ আমরা তখনই হতে পারি যখন বুঝতে পারি , আমরা আমাদের সম্পর্কে , জীবন সম্পর্কে এবং আমাদের চারপাশের জগত সম্পর্কে কতটা কম জানি ।

Socrates


14. তুমি তোমার মতো হও , সবাই যে যার মত হয়ে গেছে ।

Oscar wild


15. প্রকৃতির গোপন শক্তিটিকে অর্জন করার চেষ্টা করো । গোপন শক্তিটি হল ধৈর্য ।

Ralph Waldo Emerson


16. মানুষের পক্ষে সব স্বপ্নই পূরণ করা সম্ভব যদি সে যথেষ্ট সাহসী হয় ।


17. ওরা তোমাকে নিয়ে ঠাট্টা করুক , তোমাকে নিয়ে হাসুক , তোমাকে আঘাত করুক , অবজ্ঞা করুক তাতে কিছুই হবে না । কিন্তু তারা যেন তোমাকে থামাতে না পারে।

Apoorve Dubey



18. যে ব্যাপারে তুমি সত্যিই বিশ্বাস করো , সে ব্যাপারে কখনো হাল ছেড়ো না , পথ তুমি খুঁজে পাবেই ।

Roy T. Bennett


19. সহজে জেতার আনন্দ কোথায় ? বাধা যত বিশাল , বিজয়ের আনন্দও ততই বাঁধভাঙ্গা ।

Pele


20. কখনো হাল ছেড়ে দিও না । এখনকার এই দাঁতে দাঁত চেপে করা কষ্টগুলো তোমাকে বিজয়ীর খেতাব দেবে সারাজীবনের জন্য ।

Muhammad Ali


21. তোমার জীবনে তুমি যা নিয়েই কাজ করো , তাকে সবচেয়ে ভালো ভাবে করার চেষ্টা করো । এমন ভাবে করো , যেন তোমার আগে পরে কেউ এতটা ভালো করে করতে না পারে ।

Martin Luther King Jr.


22. আমি ব্যর্থতাকে মেনে নিতে পারি , কিন্তু আমি চেষ্টা না করাকে মেনে নিতে পারি না।

Michael Jordan


23. কখনো ভেঙে পড়ো না । পৃথিবীতে যা কিছু হারিয়ে যায় , অন্য কোন রূপে সেটি ঠিকই আবার ফিরে আসে জীবনে।

Rumi


24. তোমার স্বপ্ন আর তোমার মাঝে দাঁড়িয়ে আছে কেবল একটি জিনিস , সেটি হচ্ছে অজুহাত ! যে মুহূর্ত থেকে তুমি নিজেকে অজুহাত দেখানো বন্ধ করে কাজ শুরু করবে , সে মুহূর্ত থেকে তোমার স্বপ্ন আর স্বপ্ন থাকবে না —- সেটি বাস্তবে রূপ নিতে শুরু করবে ।

Jordan Belfort


25. একটি লক্ষ্য ঠিক করো । সেই লক্ষ্যকে নিজের জীবনের অংশ বানিয়ে ফেলো । চিন্তা করো , স্বপ্ন দেখো , তোমার মস্তিষ্ক , পেশী , রক্তনালী পুরো শরীরে সেই লক্ষ্যকে ছড়িয়ে দাও , আর বাকি সবকিছু ভুলে যাও । —–এটাই সাফল্যের পথ ।

Swami Vivekananda


26. সাফল্যের মূল মন্ত্র হল যা আমরা ভয় পাই তার উপর নয় বরং আমরা যা চাই তার উপর আমাদের চেতন মনকে কেন্দ্রীভূত করা ।

Brian Tracy


27. আপনি যা করছেন , যদি ভালোবাসেন এবং ওই কাজে সফলতার জন্য সবকিছু করতে ইচ্ছুক থাকেন , তাহলে সেটা হাতের নাগালে পৌঁছোবে । কাজের পেছনে প্রতিটা মিনিটের মূল্যায়ন প্রয়োজন । ভাবুন আর ভাবুন ; আসলেই আপনি কি নকশা অথবা তৈরি করতে চাচ্ছেন ।

Steve Wozniak


28. আকাশের দিকে তাকাও । আমরা একা নই । পুরো মহাবিশ্ব আমাদের প্রতি বন্ধুত্বসুলভ । যারা স্বপ্ন দেখে এবং কাজ করে শুধুমাত্র তাদেরকেই শ্রেষ্ঠটা দেওয়ার জন্য চক্রান্তে লিপ্ত এই বিশ্ব ।

A.P.J.Abdul Kalam


29. প্রত্যেকের জীবনের একটা গল্প আছে । অতীতে ফিরে গিয়ে গল্পের শুরুটা কখনো পরিবর্তন করা সম্ভব নয় , কিন্তু কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে গল্পের শেষটা চাইলেই নতুন করে সাজিয়ে তুলতে পারো ।

Chico Xavier


30. ব্যর্থতা মানে হচ্ছে , ব্যর্থতা — কেন হয়েছে , কার কারণে হয়েছে সেগুলো কেউ জানতে চাইবে না । তুমি ব্যর্থ হলে তার যন্ত্রণা তোমাকে একদম একাকী সইতে হবে , কেউ তোমার পাশে এসে দাঁড়াবে না । তাই কখনো অজুহাত বানাবে না , অন্যদের সুযোগ দেবে না —তোমার জীবনটাকে নিয়ন্ত্রণ করার । জিততে তোমাকে হবেই ।

Anonymous

My Blog List

  • Positive Thoughts - * 1) ‘Dreams are not what you see in your sleep. Dreams* *That's what keeps you awake. '* *2) ‘To be as bright as the sun first* *You have to burn li...
    4 months ago

Popular Posts